জীবনধারা

বিবাহিত মহিলাদের সাথে প্রেম কিভাবে করবেন?

আপনি যদি বিবাহিত মহিলার সাথে প্রেম করতে চান কিংবা বিবাহিত মহিলাকে পটানোর চান তাহলে অবশ্যই সে বিবাহিত মহিলার মন মানসিকতা বুঝতে হবে। আমি আমার এই জীবনে অনেক বিবাহিত মহিলাদের সাথে প্রেম করেছে শুধু তাই নয় বিধবা মহিলাদের সাথে প্রেম করেছি।  কিভাবে বিধবা মহিলার সাথে প্রেম করতে হয় এ বিষয়ে সম্পর্কে যদি জানতে চান তাহলে এখানে ক্লিক করে জেনে আসুন। এছাড়াও আমি আমার বিধবা নারীর সাথে প্রেম করেছি আমার বিধবা নারীর সাথে প্রেম করার গল্পগুলো যদি পড়তে চান তাহলে এই লিঙ্কে ক্লিক করে পরে আসতে পারেন অনেক ভাল লাগতেও পারে। কেননা গল্প গুলোর মাঝে অনেক শিক্ষণীয় গল্প আছে যে গল্প গুলো পড়ে আপনার খুব সহজেই যেকোনো ধরনের বিধবা নারী পাঠাতে পারবেন এবং প্রেম করতে পারবেন। কেননা অবিবাহিত নারীদের থেকে বিবাহিত কিংবা বিধবা নারীদের পটানো অনেক সহজ এবং তাদের সাথে খুব সহজেই প্রেম করা যায়। এর জন্য আপনাকে অবশ্যই সঠিক পদ্ধতি অবলম্বন করতে হবে এবং সে পদ্ধতি গুলো বুঝতে হবে।

কেন বিবাহিত মহিলাদের সাথে প্রেম করবেন?

বর্তমানের যুবকরা মূলত বিবাহিত কিংবা তাদের থেকে বয়সের বেশি মহিলাদের প্রতি আকৃষ্ট হয়। এদের মূল কারণ হচ্ছে তাদের সমবয়সী সঙ্গিনী না পাওয়া এবং অর্থনৈতিক অভাব। আবার অনেকেই বিয়ে করতে ভয় পায় যার কারণে মূলত তারা বিবাহিত মহিলাদের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে থাকে। কেননা বেশিরভাগ ছেলেরাই মূলত বিয়ে করার জন্য বিবাহিত মহিলাদের সাথে সম্পর্ক করে না তারা মূলত যৌন চাহিদা মেটানোর জন্য বিবাহিত মহিলাদের সাথে সম্পর্ক করতে চাই। ছেলেরা যেমন যৌন চাহিদা মেটানোর জন্য বিবাহিত মহিলাদের সাথে সম্পর্ক গড়ে তুলতে চাই ঠিক তেমনি বিবাহিত মহিলারা তাদের যৌন চাহিদা মেটানোর জন্য পরপুরুষের সাথে সম্পর্ক গড়ে তুলতে চায়। কেননা মেয়েরা স্বামীর কাছে ধন সম্পদ টাকা পয়সা কোন কিছুই চাই না শুধু চাই তার তৃপ্তি যেন মেটাতে পারে। এক্ষেত্রে অনেক পুরুষরাই তাদের শারীরিক অক্ষমতার জন্য তার স্ত্রী যৌন তৃপ্তি মেটাতে পারেনা। এছাড়াও বিবাহিত মহিলারা পারিবারিক বিভিন্ন সমস্যার জন্য পরপুরুষের সাথে প্রেম বা সম্পর্ক স্থাপন করে। বেশিরভাগ মেয়েদের কম বয়সে বিয়ে হওয়ার কারণে স্বামীর বয়স অনেক বেশি থাকে যার কারণে তারা নিজেদের স্বামীর সাথে মানিয়ে নিতে পারে না। তখন মূলত বিবাহিত মহিলারা সমবয়সী সঙ্গিনী পাওয়ার জন্য পর পুরুষের সাথে প্রেম করতে চাই। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যায় বিবাহিত মহিলারা তাদের থেকে কম বয়সী ছেলেদের সাথে সম্পর্ক স্থাপন করতে চাই। শুধু তাই নয় বিবাহিত মহিলারা মূলত অবিবাহিত ছেলেদের সাথে প্রেম বা শারীরিক সম্পর্ক করতে চাই। আমি আজকে আপনাদেরকে কয়েকটি পদ্ধতি বলে দিব এই পদ্ধতিগুলো অবলম্বন করলে আপনি খুব সহজেই বিবাহিত মহিলাকে পটাতে পারবেন।

বিবাহিত মহিলার মন মানসিকতা জানা

একজন বিবাহিত মহিলাকে পটাতে হলে অবশ্যই তার মন-মানসিকতা সম্পর্কে জানতে হবে। জানতে হবে সে কোন পরিস্থিতিতে এখন আছে পারিবারিক কোনো সমস্যা নাকি তার স্বামীকে নিয়ে সমস্যা ইত্যাদি। তার সাথে জানতে হবে তার ছেলেমেয়ে আছে কিনা যদি তার ছেলেমেয়ে থাকে তাহলে সে বিবাহিত মহিলাকে পটাতে একটু কষ্ট হবে তবে কোনো ব্যাপার নয়। সব থেকে বেশি ভালো হয় বিবাহিত মহিলাকে যদি আপনার বয়সের বড় থাকে। আপনি যদি বিবাহিত মহিলার সাথে প্রেম করতে চান এবং খুব সহজেই পটাতে চান তাহলে আপনার বয়সের বড় বিবাহিত মহিলাকে বেছে নিন। কেননা আমি জানি আপনি বিয়ের উদ্দেশ্যে বিবাহিত মহিলার সাথে সম্পর্ক স্থাপন করতে চাচ্ছেন আপনি মূলত শারীরিক সম্পর্ক করার জন্যই বিবাহিত মহিলাদের সাথে সম্পর্ক স্থাপন করতে চাচ্ছেন। এক্ষেত্রে বিবাহিত মহিলাকে যদি আপনার বয়সের বড় হয়ে থাকেন তাহলে আপনার কোন সমস্যা থাকবে বলে আমার মনে হয় না। এখন চলুন আমরা আসল কথায় আসি প্রথমে আপনাকে বিবাহিত মহিলার সাথে ভালোভাবে কথা বলতে হবে তার মনের চাহিদা সম্পর্কে জানতে হবে। সে যদি তার স্বামীকে নিয়ে কোনো অশান্তিতে থাকে তাহলে এই পরিস্থিতি বুঝে আপনাকে সে বিবাহিত মহিলাকে পটাতে হবে। এখন কথা হচ্ছে সে তার স্বামীকে নিয়ে কোন অশান্তিতে আছে অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় বিবাহিত মহিলাদের স্বামী নেশাজাতীয় দ্রব্য সেবন করেন এক্ষেত্রে বিবাহিত মহিলাদের সংসার চলতে অনেক সমস্যা হয় তখন তারা বিভিন্ন অশান্তিতে ভোগেন। তাহলে আপনাকে বুঝতে হবে বিবাহিত মহিলাটি তার পারিবারিক কিংবা সাংসারিক সমস্যায় ভুগছেন। 

পারিবারিক সমস্যার কারণে অনেক বিবাহিত মহিলাদের মন-মানসিকতা থাকেনা তারা সবসময়ই রেগে থাকে। এক্ষেত্রে আপনাকে বিবাহিত মহিলার সাথে প্রেম ভালোবাসা নিয়ে কথা না বলাই ভালো। আপনি তার সাথে এমন ভাবে কথা বলবেন যাতে করে সে বুঝতে না পারে আপনি তাকে ভালবাসেন কিংবা তার সাথে প্রেম করতে চাচ্ছেন। আপনি যদি বিবাহিত মহিলার আশেপাশে থাকেন কিংবা সে যদি আপনাকে বলেন তার স্বামী নেশাজাতীয় দ্রব্য পান করে তাহলে আপনি খুব সহজেই বুঝতে পারবেন তার মন-মানসিকতা এখন ঠিক নেই। এজন্য তার সাথে তার স্বামীকে নিয়ে কিংবা তার পারিবারিক সমস্যা নিয়ে খোলামেলা ভাবে কথা বলতে পারেন। আমি ধরে নিচ্ছি বিবাহিত মহিলাকে আপনার ভাবি। একটা কথা সবসময় মনে রাখবেন প্রথমে প্রেম করার আগে আপনাকে অবশ্যই যার সাথে প্রেম করবেন তার মনটি জয় করতে হবে। তাই আপনার প্রথম কাজ হচ্ছে ভাবীর মন আগের জয় করা। তাই আপনি যদি বিবাহিত মহিলার মন আগে জয় করতে পারেন তাহলে আপনাকে তাকে প্রেমের প্রস্তাব আগে দিতে হবে না সে আপনাকে প্রেমের প্রস্তাব দেবে। চলন পরিস্থিতি বুঝে কিভাবে মন জয় করতে হয় তা জেনে আসি। আপনার ভাবি কে বলতে পারেন ভাবী ভাইয়া যে প্রতিদিন নেশা করে বাড়িতে আসে তারপরে আপনার সংসারে অশান্তি করে আপনার কি ভালো লাগে এই সংসারে থাকতে। নেশা জিনিসটা খুবই খারাপ জিনিস আসলে ভাবি ভাইয়ের নেশা আপনার সংসারটাকে পুরোপুরিভাবে ধ্বংস করে দিয়েছে। ভাইয়াকে একটু বুঝান আপনি তাকে অনেক ভালোবাসেন আপনার ভালোবাসার দিকে তাকিয়ে হলেও নেশাটা যেন ছেড়ে দেয়। কারন আপনার মত এত সুন্দর লক্ষী ভাবি কে কষ্ট দেওয়ার কোন মানে হয়না। আপনার কষ্ট দেখে আমার আর সহ্য হয় না। ভাবি আপনার যদি কোন সাহায্য লাগে তাহলে অবশ্যই আমাকে বলবেন কারন আপনার মত যে ভালো মানুষই হয় না। আপনি ভাবির সাথে এমনভাবে ভালো ব্যবহার করবেন যাতে করে আপনার ভাবি বুঝতে পারে আপনার মন খুবই ভালো তার সমস্যাটি আপনি বুঝতে পেরেছেন। তখন আপনার ভাবীকে বলতে পারেন ভাবি আপনার মনের যত কথা আছে সব কিছু আমাকে শেয়ার করতে পারেন কারন আপনার কষ্ট দেখে আমার আর সহ্য হয় না। তখন বিবাহিত মহিলাটি তার মনের কষ্টগুলো আপনাকে বলতেও পারে। এক্ষেত্রে বেশিরভাগ বিবাহিত মহিলাদের অর্থনৈতিক ও শারীরিক সমস্যা বেশি থাকে। কেননা আপনাকে বুঝতে হবে তার স্বামী নেশাজাতীয় দ্রব্য পান করে এ জন্য অনেক টাকার প্রয়োজন এবং যারা নেশাজাতীয় দ্রব্য পান করে তারা খুবই কম স্ত্রীর সাথে শারীরিক সম্পর্ক করার সুযোগ পান। তখন আপনার ভাবির কথার মাঝখানে বলতে পারেন ভাবি আপনাদের শারীরিক সম্পর্ক কিংবা যৌন জীবন কেমন যাচ্ছে। অনেক ক্ষেত্রে বিবাহিত মহিলারা এই জিনিসটি কারো সাথে শেয়ার করতে চান না তবে আপনাকে বুঝে নিতে হবে। 

ভাবীর মন ভোলানোর জন্য বলতে পারেন ভাবি আপনার মত একজন বউ পেলে জীবনে আর কিছুই লাগে না। আমার জীবনটা ধন্য হয়ে যেত ভাবি জানেন আপনাকে আমার অনেক ভালো লাগে। যদি মনে কিছু না করেন তাহলে আমরা কি ভালো বন্ধু হতে পারি দুজনেই সুখ-দুঃখের কথা শেয়ার করতে পারি। এই কথাটি অবশ্যই ভাবির চোখে চোখ রেখে একটু মনে আবেগ নিয়ে বলতে হবে শুধু ভাবীর দিকে তাকিয়ে থাকবেন। এই পদ্ধতি যদি আপনার ভাবির সাথে অবলম্বন করতে পারেন তাহলে আমি বলছি আপনার ভাবি পটে যাবে। তারপরে আপনার ভাবিকে নিয়ে বিভিন্ন জায়গায় ঘুরতে যাবেন। তার মনের কষ্টগুলো বোঝার জন্য চেষ্টা করবেন এবং যথাসম্ভব তার মনের কষ্ট দূর করার জন্য চেষ্টা করবেন। এইভাবে আপনি সে বিবাহিত মহিলার প্রিয় একজন পাত্র হতে পারবেন। এ পরিস্থিতিতে যদি কোন বিবাহিত মহিলা পড়ে থাকে তাহলে অবশ্যই আপনার সাথে প্রেম করতে বাধ্য।

বিবাহিত মহিলাদের যৌন ইচ্ছা কিভাবে বুঝবেন

অধিকাংশ ক্ষেত্রে যখন ছেলেরা নিজের কম বয়সের মেয়েদের বিয়ে করেন এক্ষেত্রে বয়স হয়ে গেলে তার স্ত্রীর যৌন চাহিদা মেটাতে পারে না। এর কারণ মূলত বিবাহিত মহিলারা পরকীয়ায় লিপ্ত হয়। কেননা একবার যদি মেয়েরা যৌন স্বাদ পেয়ে যায় তখন থাকে সে স্বাদ গ্রহণ করতে হয়। এখন আপনি কিভাবে বুঝবেন এই বিবাহিত মহিলার যৌন চাহিদা সমস্যা আছে একদম সহজ ব্যাপার বিবাহিত মহিলার স্বামী যদি তার থেকে বয়সে বড় হয় কিংবা বৃদ্ধ হয়ে যায় তখনই বুঝতে পারবেন এ বিবাহিত মহিলাদের যৌন চাহিদা অনেক বেশি। তখন আপনি সেই বিবাহিত মহিলার সাথে খুব সহজেই প্রেম করতে পারবেন এবং তার সাথে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়তে পারবেন। কেননা এ সময় বিবাহিত মহিলারা তাদের যৌন চাহিদা মেটানোর জন্য তাদের থেকে কম বয়সী ছেলেদের খুঁজে। বিবাহিত মহিলারা কেন তাদের থেকে বয়সে বড় ছেলেদের পছন্দ করে না তার একটি কারণ হচ্ছে তারা মনে করে তাদের বয়সে বড় ছেলেরা তাদের যৌন চাহিদা মেটাতে পারবে না কারণ তার স্বামী তার থেকে অনেক বড়। এর জন্য মূলত বিবাহিত মহিলারা মনে করে থাকেন তাদের যৌন চাহিদা মেটানোর জন্য কম বয়সী ছেলেদের প্রয়োজন। সাধারণত বিবাহিত মহিলাদের যৌন চাহিদা 60 বছর বয়স পর্যন্ত থাকে। আপনার আশেপাশে যদি এরকম বিবাহিত মহিলা থাকে তাহলে আপনি তাদের সাথে মন প্রাণ খুলে কথা বলো। তাদেরকে বলতে পারেন দিনকাল কেমন চলছে আপনাকে দেখতে এখনো ইয়ং লাগছে কিন্তু আপনার স্বামী কে অনেক বুড়া লাগছে আপনার সাথে কখনো মানায় না। কখনই তাদেরকে প্রেমের প্রস্তাব দেবেন না আগে তাদের মন জয় করার চেষ্টা করুন তারপর সে নিজেই আপনাকে প্রেমের প্রস্তাব দেবে। কারণ এই সময়টায় আপনার থাকে বেশি প্রয়োজন নেই তাহার আপনাকে অনেক বেশি প্রয়োজন বুঝতে হবে। আপনি তার সাথে বিভিন্ন কথা বলার মাঝখানে বলতে পারেন আপনাদের শারীরিক সম্পর্ক কেমন যাচ্ছে এ বয়সে কি আপনার স্বামী এখন আপনি কি সুখ দিতে পারে আপনার প্রয়োজনে চাহিদা মেটাতে পারে। যদি আপনি জানেন সে বর্তমানে শারীরিক সুখী নয় তার শারীরিক সুখ করার জন্য একজন ছেলের প্রয়োজন কিংবা জীবনসঙ্গিনীর প্রয়োজন। কিভাবে তার সাথে কথা বলে প্রেমের ফাঁদে ফেলে তাকে বিভিন্ন জায়গায় ঘুরতে নিয়ে যাবেন তারপরে তার সাথে ভালো একটা সম্পর্ক গড়ে তুলতে পারবেন। এই পদ্ধতিগুলো অবলম্বন করলে অবশ্যই আপনি যেকোন ধরনের বিবাহিত মহিলাদের কে পটাতে পারবেন। এভাবে নতুন নতুন আইডিয়া কিংবা পদ্ধতি পেতে আমাকে ফলো করে রাখতে পারেন আমি আপনাদের জন্য প্রতিদিন নতুন নতুন পদ্ধতি শেয়ার করব পদ্ধতি গুলো অবলম্বন করেছে কোন মেয়েকে পড়াতে পারবেন আমি আমার অভিজ্ঞতা থেকে বলছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button